x-video.center fuck from above. azure storm masturbating on give me pink gonzo style. motphim.cc sexvideos

পৃথিবীর অনিন্দ্যসুন্দর যেসব স্থান সুইসাইড স্পট হিসেবে বিখ্যাত!

0

হতাশার চূড়ান্ত অভিব্যক্তি আত্মহত্যা। ওয়ার্ল্ড হেলথ অর্গানাইজেশনের মতে, প্রতিবছর এক মিলিয়নেরও বেশি সফল আত্মহত্যা সংঘটিত হচ্ছে। অদ্ভুতভাবে, আত্ম-ধ্বংসের এই বেপরোয়া কাজগুলি প্রায়ই বিশ্বের বেশিরভাগ সুন্দর স্থানগুলিতে সংঘটিত হয়। এই দুঃখজনক চিত্র থেকে কেবলমাত্র সান্ত্বনা হল, আত্মহত্যার চেষ্টা করে এমন অধিকাংশ মানুষই সফল হয় না। পরিসংখ্যান মতে এই অবস্থানে মৃত্যুর সংখ্যা সামগ্রিক চিত্রের তুলনায় মোটামুটি ক্ষুদ্রতর।

সাধারণত আত্মহত্যা করতে চাওয়া মানুষ ঝুলন্ত কিংবা অতিরিক্ত ঔষধ সেবন, কীটনাশক সেবন, অথবা নিজেকে স্যুট করার মাধ্যমে সম্পন্ন করে। যেহেতু আজকের বিষয় পৃথিবীর কুখ্যাত কয়েকটি সুইসাইড স্পট, তার প্রায় সব কয়েকটি স্থান একটি উচ্চতা থেকে জাম্পিং বিষয়ক, যাতে হয়তো বেঁচে ফিরে আসার কোন সম্ভাবনা না থাকে। নীচে তালিকাভুক্ত বেশিরভাগ স্থানগুলি মারাত্মক, কারণ তারা কেবলমাত্র এক শতাংশের চেয়ে বেশি হারে বেঁচে থাকার হারের ঘটনা নাটকীয়।

কেন এই তথাকথিত জনপ্রিয় রোমাঞ্চকর স্থানগুলোতে আত্মহত্যা? কেন এসব স্থানগুলো আত্মহত্যা চেষ্টাকারী লোকদের আকৃষ্ট করে? এসব প্রশ্ন কিছুটা বিতর্কের বিষয়। সাধারণত এ আত্মহত্যাগুলোকে ভিন্ন ধরনের আত্মহত্যার প্রবণতা বলে মনে করা হয়। আত্মহত্যা কখনও কখনও একটি চূড়ান্ত বিবৃতি হিসাবে দেখা যায় এবং আরেকটি অন্যতম কারণ হতে পারে সাধারণ মানুষের মনোযোগ আকর্ষণ।

পৃথিবীর ৮ টি কুখ্যাত আত্মহত্যার স্থান যেমন ভয়ংকর তেমন রোমাঞ্চকরও। হয়তো মানুষ ভয়ংকর যায়গায় যেমন রোমাঞ্চকর অনুভূতি পায়, তেমনি অন্য একদল সেটিকে মৃত্যুর উপযুক্ত স্থান বলে মনে করে। রোমাঞ্চের সাথে মৃত্যু।

মাউন্ট মিহারা

মাউন্ট মিহারা
মাউন্ট মিহারা

জাপান আত্মঘাতী প্রবণতাগুলোর জন্য সুপরিচিত একটি জাতি। মাউন্ট মিহারা টোকিওর প্রায় ১০০ কিলোমিটার (৬০ মাইল) দক্ষিণে একটি ছোট দ্বীপ আইজু অশিমার উপর অবস্থিত একটি সক্রিয় আগ্নেয়গিরি। মাউন্ট মিহারা নিয়ে একসময় প্রচুর কল্পকাহিনী প্রচলিত ছিল। হঠাৎ করে এই “আত্মঘাতী দ্বীপ” আইজু হতাশ প্রেমিকদের জন্য পছন্দসই চূড়ান্ত গন্তব্য হয়ে ওঠে। ২১ বছর বয়সী শিক্ষার্থী কিওকো মাৎসুমানো প্রেমে ব্যর্থ হয়ে প্রথম এখানে আত্মহত্যা করে, তার আত্মহত্যা মাউন্ট মিহারার জন্য কালক্রমে একটি মহামারী হয়ে উঠে। তখন থেকে মাউন্ট মিহারা জনপ্রিয় সুইসাইড স্পট হয়ে উঠেছে। কয়েক বছরের মধ্যে ৯০০ মানুষ নিজেদের জ্বলন্ত আগ্নেয়গিরিতে নিক্ষেপ করে, যদিও এই হার বেশিরভাগ সময়ে একই নয়। যেখান থেকে বেঁচে ফেরার কোন সম্ভাবনা নেই। কর্তৃপক্ষ অবশেষে নিরাপত্তা বৃদ্ধি করে এই আগ্নেয়গিরিতে সুইসাইড বন্ধ করতে পেরেছে।

ইস্ট সাসেক্স

ইস্ট সাসেক্সের অনিন্দ্য সুন্দর বিচ হেড ডোভারের বিখ্যাত হোয়াইট ক্লিফের কথা স্মরণ করে। ভূমি এবং সমুদ্রের উভয় দিকের একটি উল্লেখযোগ্য ল্যান্ডমার্ক এই নিচু খাঁজকাটা খাড়া সমুদ্রের উপরে ৫০০ ফুট এবং নীচের পাথরের উপরে উঠেছে।

ইস্ট সাসেক্স
ইস্ট সাসেক্স

সম্ভবত এটির মারাত্মক সৌন্দর্যের জন্যই এটি বিশ্বের সবচেয়ে কুখ্যাত আত্মঘাতী স্থানগুলির একটি হয়ে উঠেছে। প্রায় ২০ জন মানুষ প্রতি বছর বিচ হেড থেকে জাম্পিংয়ের মাধ্যমে আত্মহত্যা করে। সাম্প্রতিক বছরগুলিতে, আত্মহত্যাকে নিরুৎসাহিত করতে বড় ধরনের প্রচেষ্টা নেয়া হয়েছে। সামারিটানস (একটি ইউকে দাতব্য প্রতিষ্ঠান) সাইট আত্মহত্যায় ইচ্ছুক ব্যক্তিদের তাদের কল করার অনুরোধ জানিয়ে সেখানে একটি ফোন বুথের ব্যবস্থা করেছেন। ২০১১ সালে রেস্কিউ টিম ২৬৬ সম্ভাব্য জাম্পারকে জাম্পিং থেকে বিরত করতে পেরেছে।

সান ফ্রান্সিসকো

সান ফ্রান্সিসকো এর গোল্ডেন গেট সেতুকে বিশ্বের অন্যতম জনপ্রিয় আত্মহত্যার স্থান হিসাবে ধরা হয়। কিছু উৎস অনুযায়ী, গড়ে প্রতি দুই সপ্তাহে এখানে একজন আত্মহত্যা করে। সবচেয়ে খারাপ বছর ছিল ১৯৯৫, যখন ৪৫ জন আত্মঘাতী ছিল। তবুও বিপুল সংখ্যক লোক শেষ মুহূর্তে ঝাঁপ না দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। ২০০৬ সালে, ২২০ ফুট (৬৭ মিটার) লিপ তৈরি করার আগে ৭০ জন আত্মঘাতী মানুষকে সেতুটি থেকে উদ্ধার করে নেওয়া হয়েছিল।

সান ফ্রান্সিসকো
সান ফ্রান্সিসকো

গোল্ডেন গেট সেতু থেকে আত্মহত্যার পদ্ধতি বেশ কার্যকরী। ২৪৫ ফুট (৭৫ মি) থেকে ৭৫ মাইল গতিতে (১২০ কিঃ মিঃ / ঘণ্টায়) পানিতে পড়ে বেঁচে থাকার সম্ভাবনা ৫% এরও কম। আর যারা প্রাথমিকভাবে বেঁচেও যায় তারাও ।

সত্য এই যে গোল্ডেন গেট সেতুতে আত্মহত্যা এখন এত সহজ হয়ে উঠেছে যে, বৃহত্তর প্রতিরক্ষামূলক ব্যবস্থা গ্রহণের আহ্বান জানানো হয়েছে। একসময় আত্মহত্যার যে সংখ্যা গণনা করার প্রচলন ছিল, সেটি বন্ধ করে দিয়েছে প্রশাসন। গোল্ডেন গেটে প্রবেশের পথে আত্মহত্যা প্রতিরোধে বিভিন্ন সাইনবোর্ড ব্যাবহার করেছে কর্তৃপক্ষ।

নিউইয়র্ক স্কাইলাইন

যুক্তরাষ্ট্র যখন উঁচু উঁচু দালানে ঘেরা, তখন যুক্তরাষ্ট্রে গত ৩০ বছরে যেসব সুইসাইড সংঘটিত হয়েছে তার অধিকাংশই ঘটেছে উঁচু দালান থেকে লাফ দেয়ার মাধ্যমে। ২০০৮ পর্যন্ত ৩০ বছরে যুক্তরাষ্ট্রে প্রায় ৫ হাজার মানুষ নিজেকে উঁচু ভবন অথবা সেতু থেকে ফেলে হত্যা করেছে। সাধারণ দৃষ্টিকোণ থেকেই বলা যায় যুক্তরাষ্ট্রে এত এত উঁচু ভবন আত্মহত্যার চেষ্টাকারীদের অতি সহজলভ্যতার জন্য এ মাধ্যম হয়ে গিয়েছে।

নিউইয়র্ক স্কাইলাইন
নিউইয়র্ক স্কাইলাইন

আর এইসব উঁচু ভবনের মধ্যে ১০০০ ফিট উচ্চতা বিশিষ্ট নিউইয়র্ক স্কাইলাইন কুখ্যাতি অর্জন করেছে। ৮৬ তলার অভজারভেশান ডেক থেকে গত কয়েক বছরে ৪০ জন দর্শক আত্মহত্যা করেছে। আশার বাণী হচ্ছে নিউইয়র্কে জাতীয় সুইসাইড রেট এখনো জাতীয় সুইসাইড রেটের অর্ধেকেরও অর্ধেক।

দ্যা গ্যাপ

অস্ট্রেলিয়ায় দক্ষিণ হেডের প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের একটি স্থান দ্যা গ্যাপ। প্রশান্ত মহাসাগরের তীব্র জল ঘেঁষে প্রায় ১০০ ফুট উঁচু খাড়া বাঁধ এটি। একইভাবে এটি মহাদেশের শীর্ষ আত্মঘাতী স্থানগুলিরও একটি। প্রতি বছর প্রায় ৫০ জন মানুষ তাদের আত্মহত্যার জন্য এ অনিন্দ্য সুন্দর স্থান বেছে নেয়।

দ্যা গ্যাপ
দ্যা গ্যাপ

১৮৫৭ সালে বর্ষার একদিনে ডুনবার জাহাজ ভুল ন্যাভিগেশনের কারণে এ গ্যাপে বিপর্যস্ত হয়। ১২২ জন যাত্রীর মধ্যে শুধুমাত্র একজন বেঁচেছিল সেদিন। কুখ্যাত ঐ দুর্ঘটনা এখনো কেউ ভুলতে পারেনি। গ্যাপ শুধুমাত্র সিডনিতে নয়, সারাবিশ্বে আত্মঘাতী স্থান হিসেবে জনপ্রিয়। প্রতিবছর আনুমানিক ৫০ জন নিজেদের হত্যা করার জন্য এখানে আসে, এবং অনেকে দূর দূরান্ত থেকে এখানে আসে আত্মহত্যার জন্য। সম্ভবত এখানে সুপরিচিত সেরা আত্মহত্যা ছিল বিখ্যাত অস্ট্রেলিয়ান টিভি সংবাদ অ্যাপারচার চার্মাইন ড্রাগন এর। ২৯ বছর বয়সে তিনি নিজেকে ক্লিফের কাছ থেকে ছুঁড়ে দিয়েছিলেন।

নায়াগ্রা জলপ্রপাত

দুঃখের বিষয়, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও কানাডার মধ্যকার সীমান্তে বিশ্ব বিখ্যাত নায়াগ্রা জলপ্রপাত শুধুমাত্র একটি বিখ্যাত পর্যটন গন্তব্য নয়, একটি কুখ্যাত সুইসাইড স্পটও। ১৬৫ ফুট উপর থেকে জলপ্রপাতে পড়লে বেঁচে ফেরার আংশিক সম্ভাবনাও থাকেনা।

নায়াগ্রা জলপ্রপাত
নায়াগ্রা জলপ্রপাত

প্রতিবছর প্রায় ২০ থেকে ২৫ জন মানুষ নিখুঁত জলের মধ্যে আত্মহত্যা করছে। ১৮৫৬ থেকে ১৯৯৫ সাল পর্যন্ত, নায়াগ্রা জলপ্রপাতে ২,৭৮০ জন আত্মহত্যা করে। কেবলমাত্র তিনজন মানুষ নিরাপত্তামূলক ডিভাইসের সাহায্যে মৃত্যু কুপ থেকে বেঁচে যায়।

নানজিং ইয়াংটিজ ব্রিজ

পৃথিবীতে সবচেয়ে জনবহুল দেশ হিসাবে চীন এ ব্রিজকে বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় সুইসাইড স্পট হিসেবে স্বীকৃতির দাবি করলে আশ্চর্য হওয়ার কিছু নেই। জনসংখ্যার বিশালতার জন্য চীনে সারাবিশ্বে মোট আত্মহত্যার এক তৃতীয়াংশ ঘটে। যদিও চীন প্রশাসন এ তথ্য মানতে নারাজ।

নানজিং ইয়াংটিজ ব্রিজ
নানজিং ইয়াংটিজ ব্রিজ

নানজিং ইয়াংটিজ নদীতে অবস্থিত ৫ কিমি ইস্পাত এবং কংক্রিটের বিস্তারে তৈরি সেতু যাতে নদীটির ২০০ ফুট (৭০ মি) উপরে দুটি ডেকের উপর গাড়ি ও ট্রেন চলাচল করে। সেতুটি নির্মাণ সম্পন্ন হয় ১৯৬৮ সালের পর থেকে ৪০ বছর ধরে এখানে একটি আনুমানিক ২০০০ জন আত্মহত্যার মাধ্যমে মৃত্যু বরণ করে নেয়।

২০০৭ সাল থেকে অফিসিয়াল রেকর্ডে দেখায় যে, প্রতি বছর ১০০ থেকে ২০০ লোক এই সেতুর বিভিন্ন যায়গা থেকে আত্মহত্যার চেষ্টা থেকে কর্তৃপক্ষ ফিরিয়ে আনতে সক্ষম হয়েছে। সাম্প্রতিক পরিসংখ্যানে আত্মহত্যার হার কমে এসেছে। বিস্ময়করভাবে দেখা যায় যে নানজিং নদীতে আত্মহত্যার চেষ্টাকারী অধিকাংশই দূর দূরান্ত থেকে আসা।

আখিগাহার বন

জাপানে আত্মহত্যা একটি প্রধান সামাজিক সমস্যা। মানসিক অসুস্থতার সাথে জড়িত সামাজিক কলঙ্কের উপর এবং আংশিকভাবে কাজের সাথে সম্পর্কিত চাপের জন্য এমন প্রবণতা বলে দাবি করা হয়েছে। আরেকটি তত্ত্ব হল, আত্মার প্রতি জাপানী সংস্কৃতির সহানুভূতিশীল মনোভাব এবং সাহায্যের জন্য উপলব্ধ মনস্তাত্ত্বিকদের সংখ্যা কম।

আখিগাহার বন
আখিগাহার বন

চিত্রশূন্য আখিগাহার বন, যেগুলি গাছের সমুদ্র হিসেবেও পরিচিত, যে বনকে রাগান্বিত প্রফুল্লতা দ্বারা তিক্ত বলে বর্ণনা করা হয়েছে। মাউন্ট ফুজি বা সুইসাইড ফরেস্টের আয়তন ৩৫ বর্গ কিলোমিটার বিস্তৃত, যার অনেকগুলি ঘুরানো পথ রয়েছে, যার জন্য পথিক পথ হারিয়ে ফেলে। এলাকাটিতে মৃত্যুর সংখ্যা এতই মহান যে স্থানীয় পুলিশ বনটিকে একরকম ঘেরাও করে দেয়, যাতে তারা আত্মহত্যার চিন্তা ভাবনা করা মানুষজনকে পুনর্বিবেচনার পর উদ্ধারকর্মীর সাথে যোগাযোগ করতে পারে।

২০০৩ সাল নাগাদ এ সুইসাইড ফরেস্টে আত্মহত্যার হার শতকরা ১০০ পর্যন্ত পৌঁছায় বলে মনে করা হয়। এবং ২০১০ সালে, জাপান টাইমস অনুযায়ী, ২৪৭ জন মানুষ (সফল হয়েছিলো ৫৪ জন) আত্মহত্যার চেষ্টা করে। এখানে যতটা না মানুষ পথ হারিয়ে মারা যায়, তারচেয়ে বেশি মানুষ এই মাউন্ট ফুজিতে সুইসাইড করতে যায়।

মনস্তাত্ত্বিক সান্ড্রা স্যাঙ্গারের মতে, “তাৎপর্যপূর্ণ জায়গায় আত্মহত্যা করার জন্য একটি নির্দিষ্ট আপিল রয়েছে – একটি রোমান্টিকতা যা বরাবর সবাইকে আকর্ষণ করে ।”

Source Feature Image
Leave A Reply

Your email address will not be published.

sex videos ko ko fucks her lover. girlfriends blonde and brunette share sex toys. desi porn porn videos hot brutal vaginal fisting.