x-video.center fuck from above. azure storm masturbating on give me pink gonzo style. motphim.cc sexvideos

জনপ্রিয় সার্চ ইঞ্জিন গুগল সম্পর্কে জানা – অজানা এবং মজার কিছু তথ্য

YouTube
0

ইন্টারনেট ব্যবহারকারীরা সার্চ ইঞ্জিন গুগল (Google) সম্পর্কে কম বেশি জানেন না তা তো হবার নয় ৷ হয়তো এই আর্টিকেলটি পড়তেও আপনি গুগল করেই এসেছেন ৷ স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের দুইজন পিএইচডি কোর্সের ছাত্র ল্যারি পেইজ ও সের্গেই ব্রিনের হাতে তাঁদের গবেষণা প্রকল্প হিসেবে গুগলের যাত্রা শুরু হয়েছিল ৷ বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় সার্চ ইঞ্জিনের কার্যক্রম শুরু হয়েছিল দুই প্রতিষ্ঠাতার অপর একজন বন্ধুর গ্যারেজ থেকে ৷ প্রতিনিয়ত এই সার্চ ইঞ্জিনটি ব্যবহার করে যাচ্ছি আমরা তথ্য খোঁজা থেকে শুরু করে নানা ধরনের কাজে ৷ আজকে আমরা জানব সেই গুগল সম্পর্কে মজার কিছু তথ্য যেগুলোর বেশিরভাগ হয়তো আপনি ভাবতেও পারেননি কখনো ৷ তো চলুন একনজরে দেখে নেয়া যাক গুগল সম্পর্কে জানা-অজানা এবং মজার কিছু তথ্য :-

১.  গুগল (Google) নামটির উৎপত্তি হয়েছে মূলত গাণিতিক শব্দ ‘googol’ থেকে যেটির মানে হচ্ছে টেন টু দি পাওয়ার একশো। অর্থাৎ ১ এর পেছনে ১০০ টি ০ থাকবে।

ব্যাপারটা এরকম
10,000,000,000,000,000,000,000,000,000,000,000,000,­000,000,000,000,000,000,000,000,000,000,000,000,000,­000,000,000,000,000,000,000,000

২.  গুগল আপনাকে সঠিক তথ্যটি খুঁজে বের করতে সাহায্য করলেও গুগল (Google) শব্দটি নিজেই একটি ভুল শব্দ ৷ দুই প্রতিষ্ঠাতা ল্যারি পেইজ এবং সের্গেই ব্রিন তো বাইনারী কোড সম্বলিত googol ই রাখতে চেয়েছিলেন ৷ সেই অনুযায়ী পরিকল্পনা গ্রহণের ঠিক পরের বছর অর্থাৎ ১৯৯৭ সালের ১৫ই সেপ্টেম্বর গুগল ডট কম নামে একটি ডোমেইন নিবন্ধন করেন। তাঁরা যে ডোমেইনটি নিবন্ধন করতে চেয়েছিলেন সেটি না হয়ে ভুলবশত নিবন্ধিত হয় Google নামে। এ নিয়ে অবশ্য তখন তাঁরা খুবই মনোকষ্টে ভোগেন। পরবর্তীতে ভুল নাম নিয়েই এগিয়ে চলেন ৷

 

সার্চ ইঞ্জিন গুগল
দুই প্রতিষ্ঠাতা ল্যারি পেইজ এবং সের্গেই ব্রিন

৩.  ‘googol’ শব্দটির উদ্ভাবক ৯ বছর বয়সী মিলটন সিরোটা ৷ সে গণিতবিদ এডওয়ার্ড ক্যাসনার এর ভাইপো। সেই এটা কে বিখ্যাত করে তোলে তার বইয়ে এর কথা লিখে । তো এই নাম টি পছন্দ করার পেছনে গুগল ফাউন্ডারদের মূল উদ্দেশ্য ছিল যাতে তাদের এই সার্চ ইঞ্জিন এর পেছনেও এরকম অনেক মানুষ থাকে।

 

৪.  বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় সার্চ ইঞ্জিনটিকে আমরা গুগল নামে চিনলেও প্রথমে এর নাম দেয়া হয়েছিল ব্যাকরাব (backRub)৷ কারণ এই ব্যবস্থায় সাইটের ব্যাকলিংকগুলো যাচাই করা হত ঐ সাইট কত গুরুত্বপূর্ন তা নির্ধারণ করার জন্য । পরবর্তীতে ব্যাকরাব পরিবর্তন করে গুগল রাখা হয় ৷

 

৫. প্রথম দিকে গুগলের কর্মী দুই জন প্রতিষ্ঠাতাই ছিলেন কেবল । সেকারণে তারা লাঞ্চে যাওয়ার সময় হোমপেজে লিখে রেখে যেতেন, ‘সের্গেই এবং ল্যারি এখন দুপুরের খাবার খাচ্ছে তাই কোন ধরনের যান্ত্রিক ত্রুটি সমাধান সম্ভব নয় । অনুগ্রহ করে অপেক্ষা করুন ।’

 

৬.  এমনকি শুরুতে গুগলের সাইটে কোন সার্চ বাটন ছিল না, যা সার্চ করবেন তা লিখে ‘Enter’ চাপতে হত । অদ্ভুত মনে হলেও সত্যি গুগল এর ফাউন্ডাররা সার্চ বাটন ডিজাইন করতে জানতেন না ।

 

৭. গুগলের হোমপেজ প্রথম থেকেই পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন ; এতে খুব বেশি সেকশন/কনটেন্ট দেয়া হয়নি । কারণ তখন সাইটটির প্রতিষ্ঠাতারা এইচটিএমএল (ওয়েব ডিজাইন ল্যাংগুয়েজ)   কোডিংয়ে অতটা দক্ষ না থাকায় তারা একে সাধারণভাবে রেখে দেন। পরবর্তীতে গুগল প্রসার লাভ করার পরেও এই পরিচ্ছন্ন সাধারণ চেহারাই রেখে দেয়া হয় ৷

 

৮.  বিশেষ বিশেষ দিবস উপলক্ষে গুগল তাদের লোগো পাল্টে ফেলে । আর এই পাল্টে ফেলা বিশেষ লোগোর নাম ‘ডুডল’। ১৯৯৮ সালের ৩০ অগাস্ট প্রথম ডুডল প্রকাশ করা হয় ৷ মজার ব্যাপার হচ্ছে, প্রথম গুগল ডুডল কিন্তু কোনো বিশেষ দিনের জন্য ছিলো না, এটি দেয়া হয়েছিলো একটি ‘Out Of Office’ মেসেজ হিসেবে । প্রতিষ্ঠাতা দুইজন ‘বার্নিং ম্যান ফেস্টিভ্যাল’- উপলক্ষে নেভাদাতে বেড়াতে গেলে ব্যবহারকারীদের উদ্দেশ্যে  “বার্নিং ম্যান ডুডলটি” ডিজাইন করে ওয়েবসাইটে দিয়ে যান এটা বোঝাতে যে; তাঁরা অফিসের বাইরে আছেন, এ সময় কারিগরি কোনো ত্রুটির সমাধান সম্ভব হবে না ৷ তবে বর্তমানে ডুডল ডিজাইন করার জন্য গুগলের একটি বিশেষ টিম রয়েছে , এই টিমের সদস্যদের ডাকা হয় ডুডলার নামে।

 

প্রথম গুগল ডুডল
প্রথম গুগল ডুডল

৯. গুগলে যখন কোন বিষয় জানার জন্য সার্চ করা হয় তখন আমরা খুবই দ্রুত তার ফল দেখতে পাই। কিন্তু মজার বিষয় হলো, এই ফলাফল প্রদর্শনের আগে গুগল প্রায় ২০০ টি বিষয় বিবেচনা করে তারপর তা আমাদের সামনে প্রদর্শন করে !

 

১০.  ভুল বানানে গুগল খুঁজলেও কোন সমস্যা নেই । সাধারণত কোন কিছু লিখতে গিয়ে আমরা ভুল করে থাকি, আর এ বিষয়টা মাথায় রেখেই সেই ডোমেইন গুলো কিনে রেখেছে গুগল । যেমন gogle.com, gooogle.com বা googlr.com যাই লিখুন না কেন Server Not Found দেখাবে না ৷ তাছাড়া সার্চ বক্সে 466453.com লিখে সার্চ করলেও আপনার সামনে গুগল এসে হাজির হবে । তবে সেটার জন্য অবশ্যই আপনার বাসার পুরনো কিপ্যাড ফোন খুঁজে বের করতে হবে ৷ তাহলেই বুঝতে পারবেন গুগলের সাথে সংখ্যাটির মিল কোথায় !

 

১১. গুগল তার নামের আশেপাশে প্রায় ৫০০০০ নাম কপিরাইট করে রেখেছে । Google এর কম্বিনেশন করে যতগুলো দেখতে মানানসই নাম পাওয়া যায় তার সবগুলোই গুগল কিনে রেখেছে । শুধু নামই নয় ‘Google’ তার বানানের সব গুলো অক্ষরও কপিরাইট করে রেখেছে ।

 

১২. ১৯৯৮ সালে গুগলের যাত্রা শুরু হলেও ২০০০ সালের জুন মাস থেকে গুগল বিশ্বের সবচেয়ে বড় সার্চ ইঞ্জিন হিসেবে স্বীকৃতি পায় ৷ এর আগে সারাবিশ্বে জনপ্রিয় সার্চ ইঞ্জিন ছিল ইয়াহু ৷ আপনি জানেন কি ১৯৯৯ সালেই গুগলের প্রতিষ্ঠাতারা এক্সাইট নামের একটি কোম্পানির নিকট মাত্র ১ মিলিয়ন ডলারের বিনিময়ে গুগল কে বিক্রি করে দিতে চেয়েছিল? কিন্তু এক্সাইট গুগল কে না কেনার সিদ্ধান্ত নেয়। এমনকি এক পর্যায়ে ল্যারি পেইজ ও সের্গেই ব্রিন গুগলকে ইয়াহুর নিকটও বিক্রি করে দিতে চেয়েছিল ৷ কিন্তু ইয়াহু কিনতে অস্বীকৃতি জানায়। তবে ২০০২ সালের দিকে ইয়াহু ৩ বিলিয়ন ডলার এর প্রস্তাব নিয়ে আসে গুগল কে কেনার জন্য। কিন্তু গুগল আর রাজী হয় নি । ভাগ্যিস তখন রাজি হয় নি ! বর্তমানে গুগলের মূল্য প্রায় ৫২৭ বিলিয়ন ডলার ৷ যেখানে ইয়াহু প্রতিষ্ঠানের মূল্য ৩২ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের মতো ৷

 

১৩.  গুগল প্রতি বছর এপ্রিল মাসের প্রথম দিন তাদের কর্মীদের অভিনব কায়দায় অবাক করে দিয়ে এপ্রিল ফুল উদযাপন করে । আর ২০০৪ সালের ১ এপ্রিল গুগলের জিমেইল চালু করা হয়। তাই অনেকেই তখন ভাবে যে এটাও হয়তো একটা এপ্রিল ফুল প্র্যাংক।

 

১৪. একটি সাধারণ প্রশ্ন মনে আসতেই পারে      Google কোন Parts Of Speech? নিশ্চয়ই একটা সার্চ ইঞ্জিনের নাম হিসেবে একে Noun এর ক্যাটাগরিতে ফেলার কথা ভাবছেন। কিন্তু ভুলেও তা করতে যাবেন না ! ২০০৬ সালের জুন মাসে Oxford English Dictionary-তে google শব্দটিকে একটি Verb হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করা হয় ৷

google এর মানে হল – গুগল সার্চ ইঞ্জিনের সাহায্যে ইন্টারনেট থেকে কিছু খোঁজা ।

তবে কোম্পানি ‘গুগল এলএলসি’ বুঝাতে তো noun ই হবে ৷

 

১৫. গুগল হোমপেজ দেখা যায় প্রায় নব্বইটি ভাষায়। এর ভেতরে কিছু অদ্ভুত ভাষাও আছে। যেমন জনপ্রিয় মুভি সিরিজ “স্ট্রার ট্রেক”- এ ব্যবহৃত
‘ক্লিংওন’ ভাষা কিংবা “দ্য মাপেট” সিনেমায় ব্যবহৃত ‘বর্ক বর্ক বর্ক’ ভাষা।

১৬. গুগল চাকরি দেওয়ার ক্ষেত্রে প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা বা সার্টিফিকেটকে তেমন গুরুত্ব দেয় না । গুগলে কর্মরতদের মধ্যে ১৫ শতাংশ কর্মী কলেজ শেষ করেননি বা কলেজেই যাননি ৷

 

১৭. গুগলের সদস্যদের তারা বলে ‘Googler’ আর কোন নতুন সদস্য যোগ দিলে তাকে বলা হয় ‘Noogler.’

 

১৮. গুগলের হেডকোয়ার্টার টির নাম গুগলপ্লেক্স । নামটি নেয়া হয় গানিতিক শব্দ googolplex থেকে ।
১ গুগলপ্লেক্স = ১০^১০^১০০

অফিসটি প্রায় ২,০০০,০০০ স্কয়্যার ফিট এর। এর ভেতর ভলিবল কোর্ট, পিয়ানো, দুটি সুইমিংপুল,ব্যায়ামাগার এবং ১৮টি ক্যাফেটেরিয়া আছে । আর এই অফিস টা তে পোষা কুকুর নেয়া যায়। কিন্তু বেড়াল না ।

গুগলের হেডকোয়ার্টার
গুগলের হেডকোয়ার্টার

১৯. ভোজন রসিকদের কাছে গুগল অফিস হতে পারে স্বর্গীয় স্থান ৷ অফিসের প্রত্যেকটি অংশ যে কোন ফুড কোর্ট এর ১৫০ ফিটের ভেতর রাখা হয় ৷

 

২০. গুগল হেডকোয়ার্টার এর ঘাস কাটার জন্য গুগল ‘ক্যালিফোর্নিয়া গ্যাজলিং’ নামের এক প্রতিষ্ঠান থেকে ছাগল ভাড়া করে থাকে ! এই ছাগলগুলোর কাজ গুগল হেডকোয়ার্টারের পাশে জমে যাওয়া আগাছা আর ঘাস খেয়ে পরিষ্কার করা ৷ ঘাস কাটার কাজে গুগল পরিবেশ সচেতনই বটে !

২১. গুগলের প্রধান পাতা অর্থাৎ Google.com এ কোন বিজ্ঞাপন রাখা হয়না । যদি গুগল সেখানে বিজ্ঞাপন দেওয়ার আগ্রহ প্রকাশ করতো তাহলে এর জন্য প্রত্যেকটা বিজ্ঞাপনদাতারা কমপক্ষে ১০ মিলিয়ন ইউ এস ডলার দিত !

 

২২. যখন থেকে গুগল ‘Did you mean …?’ নামক ফিচারটি তাদের সাইটে যোগ করেছে তখন থেকেই তাদের সাইটে ট্র্যাফিক আগের থেকে বেড়ে দ্বিগুণ হয়েছে ৷

 

২৩. গুগল এর ‘I’m Feeling Lucky’ বাটনটির কারণে প্রতিবছর গুগলের প্রায় ১১০ মিলিয়ন ডলার ক্ষতি হয়। কারণ এই বাটনটি দিয়ে সার্চ দিলে গুগল কোন বিজ্ঞাপন দেখায় না । তবে শুধুমাত্র ব্যবহারকারীদের কথা ভেবেই গুগল এই বাটনটি চালু রেখেছে ৷

 

২৪. বড় কোনো সংখ্যা নিয়ে সমস্যায় আছেন ? পড়তে পারছেন না ? গুগল দিতে পারে সমাধান । সংখ্যাটিকে পড়ে দিতে গুগলে সেই সংখ্যাটির পর “=English” লিখলেই চলবে ।

 

২৫. গুগল যে সবসময় কাজেই ব্যবহৃত হবে এমন তো কোনো কথা নেই। মাঝে মাঝে বিনোদনের খোরাকও হতে পারে ৷ গুগলের সার্চ বক্সে Do a barrel roll লিখুন ৷ তারপরেই দেখুন চমক ৷ আপনাকে পুরো এক চক্কর নাগরদোলার দোল খাইয়ে নিয়ে আসবে। সার্চ বক্সে 241543903 লিখলে দেখতে পাবেন অদ্ভুত কিছু ছবি । ছবিগুলোতে কিছু মানুষ ডীপফ্রিজের ভেতরে মাথা ঢুকিয়ে বসে আছে । এই রকম আরো কিছু পাগলামি রয়েছে গুগলের । যেমন Google Mirror, Google Gravity, Epic Google, Google Loco, Google Hacker, Google Magic, Google Moon এইরকম আরো কিছু শব্দ আছে যেগুলো লিখে I’m Feeling Lucky বাটনে ক্লিক করলেই দেখতে পাবেন চমক ৷ চেষ্টা করেই দেখুন না!

 

২৬. টুইটারে গুগলের প্রথম টুইট ছিলোঃ
I’m 01100110 01100101 01100101 01101100 01101 01101110 01100111 00100000 01101100 01110101 01100011 01101011 01111001 00001010
বাইনারি কোডিং এ এর অর্থ I’m Feeling Lucky । সেটি প্রকাশিত হয়েছিল ২০০৯ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে ৷

 

২৭. ২০১০ সালে গুগল প্রায় প্রতি সপ্তাহে ১টি করে নতুন কোম্পানি কিনে নেয়ার উদ্দ্যোগ নেয় ৷

 

২৮. ২০১৫ সাল থেকে গুগল সহ গুগলের অধীনস্হ সকল প্রতিষ্ঠান Alphabet Inc. নামের একটি প্যারেন্ট কোম্পানীর অধীনে কাজ চালাচ্ছে ৷

ল্যারি পেইজ অ্যালফাবেটের সিইও এবং সের্গেই প্রেসিডেন্ট এর দায়িত্ব পালন করছেন ৷

 

২৯.  ল্যারি এবং সের্গেই এর ব্যক্তিগত বিমানের জন্য নাসার মালিকাধীন একটি বিমানবন্দরে রানওয়েও রয়েছে ৷ যেখানে বিশ্বের আর কোন ব্যক্তিগত বিমান অবতরণ করার অনুমতি নেই ৷ মূলত গুগল ৬০ বছরের জন্য নাসার বিমানের হ্যাঙ্গারটি ইজারা নিয়েছে ৷

 

৩০. গুগলের ভবিষ্যৎ পরিকল্পনাগুলো বেশ উচ্চাকাঙ্ক্ষীই বলতে হয় । ২০২০ সালের মধ্যে সারা পৃথিবীর প্রায় ১২৭ মিলিয়ন বই স্ক্যান করে নিজস্ব ডেটাবেইসে সংযুক্ত করার পরিকল্পনা নিয়েছে গুগল। তা ছাড়া তারা এমন একটি কম্পিউটার বানানোর চেষ্টা করছে যেটি নিজেই প্রোগ্রাম লিখতে পারবে !

 

 

তথ্যসূত্র

 

১. https://en.m.wikipedia.org/wiki/Google

২. https://www.scoopwhoop.com/google-facts/

৩. https://www.techtunes.com.bd/reports/tune-id/265722

৪. http://entertainmentmaniac.com/গুগল-এর-কিছু-অজানা-তথ্য/

 

৫. http://mashable.com/2010/06/19/10-google-facts/#U7zKsRefN8qf

 
Leave A Reply

Your email address will not be published.

sex videos ko ko fucks her lover. girlfriends blonde and brunette share sex toys. desi porn porn videos hot brutal vaginal fisting.