x-video.center fuck from above. azure storm masturbating on give me pink gonzo style. motphim.cc sexvideos

‘সামুরাই’ : হার না মানা অদম্য যোদ্ধাদের ইতিহাস

Source: ozy.com
0

ভয়ংকর যোদ্ধা “সামুরাই”-দের স্থান আজ ইতিহাসের পাতায়।তাদের ইতিহাস সম্মান আর বীরত্বে গাথা।আজকের জুজিৎসু আর কেনডোর মধ্যে দিয়ে আমরা তাদের সম্মন্ধে অনেকটা জানতে পারি।

সামুরাই কারাঃ

সামুরাই, সাহসী সামরিক যোদ্ধা হিসেবে যাদের পরিচয়, তারা আসলে ১২শ শতকের দিকে জাপান সম্রাট মিকাডোর বিপক্ষে গিয়ে “শগুন” কে ক্ষমতা দখল করতে সাহায্য করে।”দায়মিওস”এর অনুগত হিসেবে তারা শগুনকে সম্রাটের চেয়ে উচু স্থানে আসীন করে।১৮৬৮ সালে মেইজি রেস্টোরেশনের আগ পর্যন্ত তারা জাপান সরকারকে পদানত করে রাখে। উপরন্তু, জাপানের বর্তমান আমলের আচার ব্যবহারের অনেকটাই সামুরাইদের কোড অব কন্ডাক্ট “বুশিডো”-(যোদ্ধার পথ) থেকে নেওয়া।

সামুরাইয়ের স্কেচ
সামুরাইয়ের স্কেচ Source: www.sketchite.com

পূর্বকথাঃ

হেইয়ান সময়কালে (৭৯৪-১১৮৫) , সামুরাইরা ছিল ধনী জমির মালিকদের সশস্ত্র কর্মী।

১২ শ শতকের মাঝামাঝি সময়ে, জাপানে আসল রাজনৈতিক শক্তি ধীরে ধীরে সম্রাটের কাছ থেকে দূরে চলে যায় এবং কিয়োটো অঞ্চলে তার উত্তরাধিকারীগণ তাদের বৃহৎ এস্টেটে গোষ্ঠীর প্রধানদের দিকে চলে যায়। জেমপেরির যুদ্ধ (১১৮০-১১৮৫) জাপানের রাষ্ট্রীয় নিয়ন্ত্রণের জন্য একটি মাইলফলক।  এখানে একে অপরের বিরুদ্ধে  দুটি-প্রধান প্রভাবশালী গোষ্ঠী  টায়রা এবং মিনামোটো যুদ্ধ করে । জাপানের ইতিহাসে সবচেয়ে বিখ্যাত সামুরাই হিরোদের মধ্যে একজন, মিনামোটো ইয়োশিৎসুন, দান-ন-উরা গ্রামের কাছে টায়রা গোষ্ঠী-র বিরুদ্ধে বিজয় অর্জনে গোত্রের নেতৃত্বে ছিলেন।

সামুরাইদের উত্থান
সামুরাইদের উত্থান Source : www.capsulecomputers.com

সামুরাইদের উত্থান ও কামাকুরা সময়কালঃ

বিজয়ী নেতা মিনামোটো (ইয়োশিৎসুনের অর্ধ-ভাই, যাকে তিনি নির্বাসনে রেখেছিলেন) কামাকুরাতে সরকার কেন্দ্র স্থাপন করেছিলেন। কামাকুরা শোগুনাতে(একটি বংশগত সামরিক একনায়কত্ব) প্রতিষ্ঠার পর জাপানে সমস্ত বাস্তব রাজনৈতিক ক্ষমতা স্থানান্তরিত হয় সামুরাইদের হাতে। মিনামোটো কর্তৃপক্ষ তাদের শক্তির উপর নির্ভর করে, তিনি সামুরাইয়ের বিশেষ অধিকার বাস্তবায়ন করেছিলেন।কেউই মিনামোটোর অনুমতি ছাড়া নিজেকে সামুরাই ঘোষণা করতে পারত না।

এই সময় চীনের কাছ থেকে জাপানে বৌদ্ধধর্ম চালু হয়, যা সামুরাইদের কাছে যথেষ্ট জনপ্রিয় হয়। নান্দনিক এবং সরল রীতিনীতি, সেইসাথে বিশ্বাস, এটি একটি আদর্শ দার্শনিক পটভূমি প্রদান করে যা সামুরাইরা নিজের আচরণবিধি কোড বুশিডোর জন্য পছন্দ করে । কামাকুরা সময়কালে, তরবারি সামুরাই সংস্কৃতিতে একটি মহান তাৎপর্যপূর্ণ ছিল। একজন মানুষের সম্মান তার তলোয়ারের উপর অনেকটা নির্ভর করত।

আশিকাগা শগুনাতেঃ

13 তম শতাব্দীর শেষের দিকে দুটি মঙ্গোল আক্রমণের পরাজয়ের কারণে কামাকুরা শগুনাতে দুর্বল হয়ে পড়ে, যার ফলে আশিকাগা তাকাউজির নেতৃত্বে বিদ্রোহ হয়। আশিকাগা শোগুনাত প্রায় 1336 খ্রিস্টাব্দে শুরু হয়।এর কেন্দ্র হয় কিয়োটোতে। পরবর্তী দুই শতাব্দীর জন্য জাপান তার  আঞ্চলিক গোষ্ঠীগুলোর মধ্যে একটি সংঘাতের মধ্যে ছিল। ১৪৬৭-৭৭ সালে অনীন যুদ্ধের পর অশিকাগা শোগুনাত মোটামুটি  অকার্যকর হয়ে যায়। এসময় সামন্ততান্ত্রিক জাপানে একটি শক্তিশালী কেন্দ্রীয় কর্তৃপক্ষের অভাব ছিল। রাজনৈতিক অস্থিরতা সত্ত্বেও, এই সময়ে জাপানে যথেষ্ট অর্থনৈতিক সম্প্রসারণ হয়েছিল। এটি জাপানি শিল্পের জন্য একটি সুবর্ণযুগ ছিল, কারণ সামুরাই সংস্কৃতি ​​বৌদ্ধধর্মের ক্রমবর্ধমান প্রভাবের অধীনে এসেছিল।এ সময়কাল মুরোমাচি নামে পরিচিত। মুরোমাচি  সময়কালে চা-অনুষ্ঠান, রক গার্ডেন এবং বিভিন্ন জাপানিজ আর্টের প্রভূত উন্নতি সাধন হয়।

তকুগাওয়া শগুনাতেঃ

যুদ্ধকালীন সময় অবশেষে শেষ হয় ১৬১৫ সালে যখন তগুকাওয়া এর অধীনে জাপান একীভূত হয়। এই সময়েই জাপানের শান্তি ও সমৃদ্ধি বাড়তে থাকে। ২৫০ বছর যাবৎ এমনটা চলতে থাকে।প্রথমবারের মতো সামুরাইরা সামরিক মাধ্যমের পরিবর্তে নাগরিক মাধ্যমের মাধ্যমে শাসনের দায়িত্ব গ্রহণ করেন। তকুগাওয়া “মিলিটারী হাউজেজ অধ্যাদেশ” জারি করেন, যার দ্বারা অস্ত্র মাধ্যমে সমানভাবে সকল সামুরাইকে প্রশিক্ষিত করা হয় এবং কনফুসিয়াসবাদের নীতি অনুযায়ী “নম্রতা” শেখানো হয়। এই ভাবে রক্ষণশীল বিশ্বাস, আনুগত্য ও কর্তব্যের ওপর জোর দিয়ে, তোকুগাওয়া বৌদ্ধ ধর্মকে সামুরাই এর প্রভাবশালী ধর্ম হিসেবে আবির্ভূত করেছিলেন। এই সময়ের মধ্যে  বৌদ্ধ ধর্মের মূলনীতি সাধারণ জনগণের আচরণের মধ্যে খাপ খেয়ে যায়। যদিও বৌদ্ধবিহারের বৌদ্ধ চিন্তাধারা ও কনফুসিয়ান চিন্তাধারার প্রভাবের মধ্যে পার্থক্য ছিল, তাতে যোদ্ধা আত্মা তখনও অব্যাহত ছিল। শত্রুদের মুখোমুখি সামরিক দক্ষতা এবং নির্ভীকতার ওপর জোর দেওয়া ছিল।* বুশিডো নীতিতে পরিবার, বিশেষত বয়স্কদের  জন্য দুর্বলতা, উদারতা, সততা এবং যত্নের উপর জোর দেওয়া হয়েছে।

‎ শান্তিপূর্ণ জাপানে, অনেক সামুরাইকে আমলাতান্ত্রিক হতে বা কোনও ধরনের বাণিজ্য করতে বাধ্য করা হতো।এমনকি তারা নিজেদের যুদ্ধের জন্য লড়াই করার মতো নিজেদেরকে রক্ষা করে।তারা নিজেদের যোদ্ধা হিসেবে ভাবতেই পছন্দ করত।

‎ ১৫৮৮ সালে, তলোয়ার বহন করার অধিকার শুধুমাত্র স্যামুরাইদের জন্য সীমিত ছিল, যা তাদের এবং কৃষক-কৃষক শ্রেণীর মধ্যে আরও বড় বিচ্ছেদ সৃষ্টি করেছিল। এই সময়ের মধ্যে সামুরাই তার “বিশেষাধিকারের একটি চিহ্ন” হিসাবে একটি সংক্ষিপ্ত এবং একটি দীর্ঘ তলোয়ার উভয় ব্যবহার করে “দুই তলোয়ার মানুষ,” হয়ে ওঠে। তকুগাওয়া শোগুনাতের সময় বেশিরভাগ সামুরাইয়ের আসল গুরুত্ব হ্রাস পায়। সামুরাইরা ঐতিহ্যগতভাবে জমির মালিকদের কাছ থেকে নির্দিষ্ট জায়গায় তাদের জীবিকা নির্বাহ করতেন। জমির মালিকের দেওয়া বৃত্তি দিয়ে তাদের দিন চলত।যখন এই বৃত্তি বন্ধ হয়ে যায়,তা সামুরাইদের কষ্টে ফেলেছিল। অনেক নিম্ন স্তরের সামুরাই তাদের পরিস্থিতি উন্নয়নে তাদের অক্ষমতার জন্য হতাশ ছিল।

মেইজি রেস্টোরেশনঃ

১৯শ শতকের মাঝামাঝি সময়ে দুর্ভিক্ষ ও দারিদ্র‍্য সহ বিভিন্ন কারণে তোকুগাওয়ার রাজ্যের স্থিতিশীলতা হ্রাস পায়। কৃষকদের মাঝে অস্থিরতা দেখা যায়।পশ্চিমা শক্তিগুলো এসময় চাপ প্রয়োগ করে। আন্তর্জাতিক বাণিজ্যের বিষয়েই মূলত এসময় অনেক কাঠখড় পোড়ানো হয়। পশ্চিমা শক্তিগুলো জাপানের উপর খড়গ চাপিয়ে দেবার চেষ্টা করে। ১৮৫৩ সালে মার্কিন নৌবাহিনীর কমোডর ম্যাথিউ সি পেরি-এর আগমনের পর, জাপানকে আন্তর্জাতিক বাণিজ্যে তার দরজা খুলে দেওয়ার জন্য একটি মিশন প্রদান করা হয়েছিল। এটি ছিল বেশ অপমানজনক।তোকুগাওয়া এ সময় একটি বিতর্কিত সিদ্ধান্ত নিয়ে বসে।১৮৫৮ সালে, জাপান মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সাথে একটি বাণিজ্যিক চুক্তি স্বাক্ষর করে।পরে রাশিয়া, ব্রিটেন, ফ্রান্স এবং হল্যান্ডের সাথেও এমন বাণিজ্যিক চুক্তিতে আবদ্ধ হয় জাপান। পশ্চিমা বাণিজ্য ও বিনিয়োগের জন্য দেশটির এমন বিতর্কিত সিদ্ধান্ত জাপানের রক্ষণশীল শক্তির মধ্যে বেশ খানিকটা ক্ষোভের সঞ্চার করে।এতে করে তকুগাওয়ার ভিত অনেকটা নড়ে যায়।অনেক সামুরাই সহ আন্দোলন কারীরা  সম্রাটের শক্তি পুনরুদ্ধারের আহ্বান জানায়। তোকুগাওয়া শোগুনাতকে উৎখাত করার জন্য চৌশু ও সন্তুমামের শক্তিশালী গোষ্ঠীগুলি ১৮৬৮-এর  গোড়ার দিকে সম্রাট মেইজির নামে একটি “রাজকীয় পুনর্গঠন” ঘোষণা করেছিল। সামন্তবাদকে ১৮৭১ সালে আনুষ্ঠানিকভাবে বিলুপ্ত করা হয়; পাঁচ বছর পর, জাতীয় সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যদের ছাড়া তলোয়ার পরিধান করা ছাড়া অন্য সবার জন্য নিষিদ্ধ ছিল।  সামুরাইদের সমস্ত বৃত্তিগুলি সরকারি বন্ডে রূপান্তরিত হয়, এবং এতে কিছু উল্লেখযোগ্য আর্থিক ক্ষতির মধ্যে পড়ে সরকার। নতুন জাপানি জাতীয় সেনাবাহিনী ১৮৭০-এর দশকে বিভিন্ন সামুরাই বিদ্রোহকে বাতিল করে দিয়েছিল।কিছু অসংলগ্ন সামুরাই গোপনে অতি-জাতীয়তাবাদী সমাজে যোগদান করেছিল, তাদের মধ্যে কুখ্যাত ব্ল্যাক ড্রাগন সোসাইটি, তাদের উদ্দেশ্য ছিল চীনে সমস্যার সৃষ্টি করা যাতে জাপান সেনাবাহিনী একটি অজুহাত দেখাতে পারে চীন আক্রমণ করার জন্য।

সম্রাট মেইজিকে সিংহ আসনে ফিরিয়ে আনা
সম্রাট মেইজিকে সিংহ আসনে ফিরিয়ে আনা
Source : www.hoyengan.blogspot.com

সামুরাইরা তাদের সুবিধাজনক ব্যাপার গুলোকে বিসর্জন দিয়ে মেইজি রেস্টোরেশন শুরু করেছিল। এটি তাদের অধিকার অনেকাংশেই ক্ষুন্ন করেছিল।নতুন জাপান এর সবচেয়ে প্রভাবশালী নেতাদের মধ্যে তিনজন ইনউই কেরু, ইটোর হিরোবুমী এবং যমগাটা আরিতোমো।তিনজনই বিখ্যাত সামুরাই ইয়োশিদার ক্লাসমেট ছিলেন। ইয়োশিদা ১৮৫৯ সালে একজন তকুগাওয়া অফিসার হত্যার চেষ্টা ব্যর্থ হওয়ার পর মৃত্যুদন্ড পেয়েছিলেন।সামুরাইরাই জাপানের ভবিষ্যৎদ্রষ্টা। জাপানে কি হবে না তারাই স্বপ্ন দেখায়। আধুনিক সমাজের সব অঞ্চলে নেতা হয়ে উঠবে তারা।

বর্তমান জাপানে বুশিডোঃ

মেইজি পুনরুদ্ধারের পরে, শিনতোকে জাপান রাষ্ট্রের ধর্ম বানানো হয়েছিল (কনফুসীয়বাদ, বৌদ্ধ এবং খ্রিস্টীয়তা থেকে ভিন্ন, এটি সম্পূর্ণরূপে জাপানী ছিল) এবং বুশিডোকে তার শাসনতান্ত্রিক কোড হিসাবে গ্রহণ করা হয়েছিল। ১৯১২ সালের মধ্যে জাপান তার সামরিক শক্তি গড়ে তোলার জন্য সফল হয়েছিল। ১৯০২ সালে ব্রিটেনের সাথে একটি জোটের চুক্তি স্বাক্ষরিত হয় এবং দুই বছর পর মানচুরিয়াতে রাশিয়ানরা পরাজিত হয়-এর পাশাপাশি এর অর্থনীতিতেও ধ্বস নামে। বিশ্বযুদ্ধের শেষের দিকে  ব্রিটেন,  মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ফ্রান্স ও ইতালির পাশাপাশি “বিগ ফাইভ” ক্ষমতার একটি হিসাবে স্বীকৃত ছিল জাপান।

বুশিডোর সাত নীতি
বুশিডোর সাত নীতি
Source : www.pinterest.com

১৯২০ এর দশক ছিল উদার পন্থী। এসময় সামরিক বাহিনীতে আসে পরিবর্তন। ১৯৩০-এর দশকে জাপানের সামরিক ঐতিহ্যের একটি পুনরুজ্জীবনের পথ উন্মুক্ত হয়েছিল, যা সাম্রাজ্যবাদী আগ্রাসনের দিকে অগ্রসর হয় এবং দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে জাপানের অনুপ্রবেশের নেতৃত্ব দেয়। এই সংঘর্ষের সময়, জাপানী সৈন্যরা এন্টিকের সামুরাই তলোয়ার নিয়ে যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়ে এবং অসম্মানের আগে বা মৃত্যুর বুশোদো নীতি অনুযায়ী আত্মঘাতী “বাজাই” আক্রমণ করে। যুদ্ধের শেষদিকে, জাপান আবার একটি সাধারণ কারণে সম্মান, শৃঙ্খলা ও নিষ্ঠার অনুভূতি প্রকাশ করে- অতীতের ডাইমোস বা শোগুনাত নয়, বরং সম্রাট এবং দেশকে তারা ভালবাসার প্রমাণ দেয়। এতে করে বিংশ শতাব্দীতে নিজেদের পুনর্নির্মাণ ও পুনর্নির্মাণের জন্য বিশ্বের  অন্যতম  অর্থনৈতিক ও শিল্প শক্তি হবার পথে এগিয়ে যাচ্ছে তারা।

জাপান এখন বিশ্বে নীতিবান, সময়ানুবর্তী দেশ হিসেবে রোল মডেল। চুরি ডাকাতির পরিমাণ জাপানে ইউ এস এ থেকে ৩৯ গুণ কম।উদাহরণ হিসেবে বলা যায়ঃ দুর্ঘটনাজনিত কারণ ছাড়া জাপানে এক মিনিট ও ট্রেন লেট হয় না।টয়োটা গাড়ির মাতৃভূমি জাপান, শিল্পক্ষেত্রে পথিকৃৎ। সব মিলিয়ে সামুরাই ও বুশিডো নীতির জয়জয়কার।

 

তথ্যসূত্রঃ

  1. https://www.google.com/url?sa=t&rct=j&q=&esrc=s&source=web&cd=15&cad=rja&uact=8&ved=0ahUKEwi7kvPSspfaAhUKKY8KHWuLBZIQFgiNATAO&url=https%3A%2F%2Fwww.thoughtco.com%2Fwhat-is-bushido-195302&usg=AOvVaw2h4pFSQBbee3KMNoTRmIe4
  2. https://people.howstuffworks.com/samurai5.htm
  3. https://en.wikipedia.org/wiki/Bushido:_The_Soul_of_Japan

 

Source Featured Image
Comments
Loading...
sex videos ko ko fucks her lover. girlfriends blonde and brunette share sex toys. desi porn porn videos hot brutal vaginal fisting.