খালেদ মেশাল হত্যাচেষ্টাঃ মোসাদের এক ব্যর্থ কিলিং মিশন

১৯৯৭ সালের জুলাই মাসে জেরুজালেমের এক বাজারে ফিলিস্তিনিদের বোমা হামলায় ১৬ ইসরায়েলি নিহত এবং ১৭০ জন আহত হয়। এই ঘটনার পর ফিলিস্তিনের স্বাধীনতাকামী সশস্ত্র সংগঠন হামাস দায় স্বীকার করে। এটিই ছিল হামাসের প্রথম হামলা। তখন ইসরায়েলের ক্ষমতায় ছিলেন নেতানিয়াহু। এর প্রতিশোধ নিতে ইসরায়েলের তুরুপের তাস মোসাদকে দায়িত্ব দেয়া হয়। একই বছর সেপ্টেম্বর মাসে আরো কয়েক […]

ক্রুসেডঃ মুসলিম- খ্রিস্টান সংঘাত

ইউরোপের খ্রিস্টান এবং প্রাচ্যদেশীয় মুসলিমদের মধ্যে প্রায় দুইশো বছর (১০৯৬-১২৯২) ব্যাপী চলমান ধর্মযুদ্ধকে ইতিহাসে ক্রুসেড নামেই নামাংকিত করা হয়। মধ্যযুগের ইউরোপ এবং এশিয়ার ইতিহাসে ক্রুসেড বা ধর্মযুদ্ধ ছিল এক যুগান্তকারী ঘটনা৷ মূলত পবিত্রভূমি জেরুজালেমকে নিজেদের দাবি করে মুসলিম ও খ্রিস্টান উভয়পক্ষ এ যুদ্ধে জড়িয়ে পড়ে৷ খ্রিস্টানগণ তাদের ধর্মীয় গুরু পোপের নির্দেশে বুকে ক্রুশ চিহ্ন নিয়ে […]

আইন জালুতের যুদ্ধঃ মামলুকদের হাতে নাস্তানাবুদ মোঙ্গল বাহিনী

আব্বাসীদের রাজধানীকে ধূলোয় মিশিয়ে দিয়ে মোঙ্গল নেতা হালাকু খান তখন হয়ে উঠছেন অপ্রতিরোধ্য। বাগদাদের মত একটা শহরকে নিষ্ঠুরতার সাথে দখল করে ভাই মেংগু খানের আস্থার প্রতিদান দিতে যেন কার্পণ্য করেননি চেংগিস খানের এই নাতি। পশ্চিমাঞ্চলে সামরিক অভিযানের অংশ হিসেবে গুপ্তঘাতক সম্প্রদায়কে দমন করে যখন হালাকুর হাতে বাগদাদ অবনত হল তখন উত্তর আফ্রিকায় গুঞ্জন রটে গেল […]

পানিপথের তৃতীয় যুদ্ধঃ মারাঠা ও আফগান লড়াই

ভারতের হরিয়ানা রাজ্যের পানিপথ শহরটি ইতিহাসে বিখ্যাত দুটি কারণে৷ মহাভারতে বলা আছে পঞ্চপাণ্ডব দ্বারা প্রতিষ্ঠিত হয়েছে প্রাচীন এ নগর। তবে মহাভারতের উপাখ্যান পেরিয়ে পানিপথ বিখ্যাত হয়ে আছে আরো একটি কারণে৷ এই পানিপথের উন্মুক্ত প্রান্তরেই ইতিহাসের সাড়া জাগানো তিনটি যুদ্ধ সংঘটিত হয়েছে। ১৫২৬ সালে বাবুরের বিরুদ্ধে দিল্লি সালতানাতের সুলতান ইব্রাহিম লোদী যুদ্ধে নামেন৷ ভারতের ইতিহাসের মোড় […]

পানিপথের দ্বিতীয় যুদ্ধ: মুঘল সাম্রাজ্যের পুনরূত্থান

ভারতের হরিয়ানা রাজ্যের পানিপথ শহরটি ইতিহাসে বিখ্যাত দুটি কারণে৷ মহাভারতে বলা আছে পঞ্চপাণ্ডব দ্বারা প্রতিষ্ঠিত হয়েছে প্রাচীন এ নগর।

মর্ডেচাই ভান্নুঃ ইসরায়েলি নিউক্লিয়ার হুইসেলব্লোয়ার

পৃথিবীর নবম পারমাণবিক শক্তিধর রাষ্ট্র হিসেবে ইসরায়েলকে সন্দেহ করা হলেও ইসরায়েল কখনোই এ ব্যাপারে কোন স্পষ্ট বক্তব্য প্রদান করে না। এক্ষেত্রে তারা ‘নিউক্লিয়ার এমবিগিউটি’ বা পারমাণবিক দ্ব্যর্থতা অনুসরণ করে। অর্থাৎ তাদের কাছে পারমাণবিক অস্ত্র আছে বলে স্বীকারও করবেনা আবার নাই বলে অস্বীকারও করবে না। ১৯৬০ সাল থেকেই পারমাণবিক বিশেষজ্ঞগণ ইসরায়েলের পারমাণবিক কর্মসূচি সম্পর্কে সন্দেহ পোষণ […]

প্রাণঘাতী যুদ্ধকথা : প্রথম বিশ্বযুদ্ধকালীন অস্থিরতা

১৯১৪ খ্রিস্টাব্দের ২৮ জুন সারাজেভোতে অস্ট্রিয়ার যুবরাজ এবং তার স্ত্রীকে হত্যাকাণ্ডের মধ্য দিয়ে এবং ২৩ জুলাই অস্ট্রিয়ার রাষ্ট্রদূতের পক্ষ থেকে সার্বিয়াকে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যাক্ত করে চরমপত্র প্রদানের মধ্য দিয়ে প্রথম বিশ্বযুদ্ধ শুরু হয়। পরবর্তীতে ২৮ জুলাই অস্ট্রিয়ার অস্ট্রো-হাঙ্গেরী সাম্রাজ্য সার্বিয়ার বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করলে সার্বিয়াও পাল্টা যুদ্ধের পথ বেছে নেয়। কিন্তু এ যুদ্ধ ক্রমেই সমগ্র বিশ্বের মধ্যে সংঘাতময় পরিস্থিতির সৃষ্টি করে।

মুসলিম-মানস ও বাংলা সাহিত্য: অধ্যাপক আনিসুজ্জামানের এক গবেষণাধর্মী সৃষ্টি

“চলে গেলেন না ফেরার দেশে আমাদের আর এক বাতিঘর। অধ্যাপক আনিসুজ্জামান ইতিহাস নির্মাণ করে নিজেই ইতিহাস হয়ে গেছেন। উপমহাদেশে সাংস্কৃতিক নেতৃত্ব দিয়ে তিনি একটি জাতি নির্মাণে অংশ নিয়েছেন। এমন বর্ণাঢ্য জীবনের দেখা মেলে না সচরাচর। সমস্ত কাজের মধ্য দিয়ে তিনি শেকড়ের সন্ধান করেছেন। তিনি জাতীয় জীবন, ইতিহাস ও সংস্কৃতিতে আমাদের বাতিঘর ছিলেন। তার সুললিত বক্তৃতা […]

Warsaw Treaty Organization (WTO) স্নায়ুযুদ্ধ কালীন ন্যাটোর প্রতিপক্ষ

WTO বলতে সাধারণত আমরা ওয়ার্ল্ড ট্রেড অর্গানাইজেশনকেই বুঝে থাকি। কিন্তু আজকে আমরা ওয়ার্ল্ড ট্রেড অর্গানাইজেশন নিয়ে কথা বলবো না। কথা বলব Warsaw Treaty Organization (WTO) নিয়ে। যদিও বর্তমানে এটা বিলুপ্ত তবুও স্নায়ুযুদ্ধের সময় এই জোট বা চুক্তি টি বেশ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিল ইউরোপের প্রক্ষাপটে। WTO এর আনুষ্ঠানিক সূচনা হয়েছিল ১৪ই মে, ১৯৫৫ সালে। প্রথমেই […]

মেয়েলি গীতঃ বিলুপ্তপ্রায় লোকগীতির ইতিকথা

“পাটের শাড়ি পিইন্ধা গো ঝিধন বাবার ছানমন খাড়া গো ঝিধন, বাবার ছানমন খাড়া হাইস্য মুখে দেও বিদায় বাবা যাইতাম পরের ঘরে ও বাবা, যাইতাম পরের ঘরে কারো লাগি পালছিলাম ঝি ধন রাজার চারকি কইরা গো ঝি ধন, বাদশাহর চারকি কইরা পরের পুতে লইয়া না যায়গা ঝি ধনরে বুকে ছেল দিয়া” নিজ আদরের কন্যাকে মা তুলে […]